1. admin@handiyalnews24.com : admin :
  2. ivan.ivanovnewwww@gmail.com : leftkisslejour :
   
চাটমোহর,পাবনা রবিবার, ০৩ মার্চ ২০২৪, ০৪:০৮ অপরাহ্ন

‘লাল কার্ড’ পেলেন সুনীল নারিন

স্পোর্টস ডেস্ক
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২৮ আগস্ট, ২০২৩ , 5.32 pm
  • ৯৯ বার পড়া হয়েছে

নতুন নিয়ম আনা হয়েছিল ফ্র্যাঞ্চাইজিভিত্তিক টি-টোয়েন্টি টুর্নামেন্ট সিপিএলে। তবে সেই লাল কার্ডের নিয়ম কেমন হতে যাচ্ছে, সেটাই ছিল মূল আগ্রহের বিষয়। এবার আসরের প্রথম লাল কার্ড পেলেন সুনীল নারিন।

সিপিএল শুরুর আগেই এই নিয়ম এনেছিল কর্তৃপক্ষ। বিশেষ করে ‘স্লো ওভার’-এর কারণে এই নিয়ম আনা হয়।

 

তবে এর আগেও ক্রিকেটে লাল-কার্ডের নিয়ম ব্যবহার করা হয়েছে। ক্রিকেটের ইতিহাসে একমাত্র লাল কার্ডের সাক্ষী কিংবদন্তি অস্ট্রেলিয়ান পেসার গ্লেন ম্যাকগ্রা। ‘আন্ডার আর্ম’ ডেলিভারির কারণে তাকে লাল কার্ড দেখিয়ে মাঠ থেকে বের করে দিয়েছিলেন আম্পায়ার বিলি বাউডেন। নিছক মজার ছলে সেবার লাল কার্ড দেখালেও এবারে আনুষ্ঠানিকভাবে ‘লাল কার্ডের’ প্রচলন আসতে যাচ্ছে ক্রিকেটে। ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (সিপিএল) এবার স্থায়ীভাবেই এর ব্যবহারের ঘোষণা দেওয়া হয়। এর প্রথম শিকার হয়েছেন নারিন।

 

সিপিএলে সেন্ট কিটস অ্যান্ড নেভিসের বিপক্ষে ইনিংসের শেষ ওভারে বল গড়ানোর আগেই তাকে লাল-কার্ড দেখান আম্পায়ার। তবে শেষ পর্যন্ত এই ম্যাচটি নাইট রাইডার্সই জিতেছে। ১৭৮ রানের বড় লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে ইনিংসের ১৭ বল বাকি থাকতেই ৬ উইকেটে জয় পেয়েছে তারা।

নিয়ম অনুযায়ী, অধিনায়কের পছন্দে তাকে মাঠের বাইরে চলে যেতে হয়। এ কারণে একজন খেলোয়াড় কম নিয়ে বাকিটা সময় খেলতে হয় ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের।

যদিও এই সিদ্ধান্তের পর ক্ষোভ ঝেড়েছেন নাইট রাইডার্সের অধিনায়ক কাইরন পোলার্ড। ম্যাচ শেষে তার মন্তব্য, সত্যি বলতে এটি (ওভার রেট পেনাল্টি) দলের প্রতিটি খেলোয়াড়ের কঠোর পরিশ্রমকে বিসর্জন দিয়ে দেওয়া হয়। আমরা মোহরের মতো এবং আমাদের যাই বলা হবে, সেটি করতেই আমরা বাধ্য। যদি আপনি এই ধরণের টুর্নামেন্টে ৪০ থেকে ৪৫ সেকেন্ডের জন্য জরিমানা করেন, তাহলে সেটি হাস্যকর ব্যাপার।

এর আগে, গত ১২ আগস্ট এক বিবৃতিতে লাল কার্ডের বিষয়টি নিশ্চিত করে সিপিএল কর্তৃপক্ষ। সে সময় জানানো হয়, কঠোরভাবে এই নিয়ম অনুসরণ করা হবে। সেখানে স্পষ্টভাবে উল্লেখ করে দেওয়া হয়, কত মিনিটের ভেতর শেষ করতে হবে খেলা।

 

নিয়ম অনুযায়ী, একটি ইনিংসের শেষ করতে হবে ৮৫ মিনিটের ভেতর। যদি এই সময়ের ভেতর শেষ করা না যায়, তাহলেই শাস্তির আওতায় আনা হবে বোলিং করা দলকে।

 

এ ছাড়া ১৭ ওভার শেষ করতে হবে ৭২ মিনিটের মধ্যে। ১৮তম ওভার ৭৬ মিনিট ৩০ সেকেন্ড আর ১৯তম ওভার শেষ করতে হবে ৮০ মিনিট ৪৫ সেকেন্ডের ভেতর। ১৭ ওভার পর্যন্ত কিছুটা বিলম্ব হলে সেটি ক্ষমার আওতায় থাকবে। শাস্তির বিধান শুরু হবে ১৮তম ওভারেও অনিয়মের দেখা মিললে।

 

১৮তম ওভারের শুরুতে সময় বেশি লাগলে শাস্তি হিসেবে পাওয়ার প্লে চললেও একজন বাড়তি ফিল্ডার ৩০ গজ বৃত্তের ভেতরে রাখতে হবে। ১৯তম ওভারের শুরুতেও যদি সময় বেশি লাগে, তাহলে দুজন বাড়তি ফিল্ডার (মোট ৬ জন) রাখতে হবে বৃত্তের ভেতরে। যদি শেষ ওভারে গিয়েও দেখা যায় নির্ধারিত সময়ের চেয়ে বেশি সময় লেগেছে, তাহলে লাল কার্ড দেখে মাঠের বাহিরে চলে যেতে হবে একজন ফিল্ডারকে। ১০ জনের দলের তখন ৩০ গজ বৃত্তের ভেতর ৬জন থাকবেন, দুইজন থাকবেন বাউন্ডারিতে। আর লাল কার্ড দেখে কোন ফিল্ডার বাইরে যাবেন, সেটা ঠিক করবেন ফিল্ডিং দলের অধিনায়ক।

 

 

 

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি। সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২২-২০২৪ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।
error: Content is protected !!