1. admin@handiyalnews24.com : admin :
  2. tenfapagci1983@coffeejeans.com.ua : cherielkp04817 :
  3. ivan.ivanovnewwww@gmail.com : leftkisslejour :
   
চাটমোহর,পাবনা মঙ্গলবার, ২৮ মে ২০২৪, ১০:০৭ পূর্বাহ্ন

উপজেলা চেয়ারম্যান কারাগারে

হান্ডিয়াল নিউজ ডেস্কঃ
  • আপডেট সময় : বুধবার, ১০ জানুয়ারি, ২০২৪ , ৮.৩৩ অপরাহ্ণ
  • ৫৮ বার পড়া হয়েছে

মেহেরপুরে দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন পরবর্তী সহিংসতার একটি মামলায় মুজিবনগর উপজেলা চেয়ারম্যান ও মেহেরপুর জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জিয়াউদ্দীন বিশ্বাসকে কারাগারে পাঠিয়েছেন মুখ্য বিচারিক হাকিম মুজিবনগর আদালতের বিচারক জাহিদুর রহমান।

বুধবার (১০ জানুয়ারি) দুপুরে জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট দ্বিতীয় আদালতে আগাম জামিনের জন্য আত্মসমর্পণ করেন জিয়াউদ্দীন বিশ্বাস। আদালত জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

 

অভিযোগে জানা গেছে, মেহেরপুর-১ আসনে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ফরহাদ হোসেনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী আওয়ামী লীগের সাবেক এমপি আব্দুল মান্নানের ট্রাক প্রতীকে ভোট করেন জিয়াউদ্দীন বিশ্বাসসহ আওয়ামী লীগের একাংশ। ভোটে ফরহাদ হোসেন বিজয়ী হলে আব্দুল মান্নানের পক্ষের লোকজনের ওপর সহিংসতা শুরু হয়। নেতাকর্মীদের মারধর, বাড়িঘরে হামলা, বিলের মাছ লুটপাট ও খেতের ফসল কেটে তছরুপ করা হয়। এসব নিয়ে ৯ জানুয়ারি এক সংবাদ সম্মেলনে বিস্তর অভিযোগ করেন পরাজিত প্রার্থী আব্দুল মান্নান। সহিংসতা বন্ধ না হলে আওয়ামী লীগের ঘরে ঘরে গৃহযুদ্ধ লেগে যাওয়ার আশঙ্কা প্রকাশ করে প্রধানমন্ত্রীর দৃষ্টি আকর্ষণ করেন তিনি।

 

এর আগে ৮ জানুয়ারি রাতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী ফরহাদ হোসেনের নেতাকর্মীরা মুজিবনগর উপজেলার আনন্দবাস গ্রামে বিজয় মিছিল করেন। মিছিলটি মুজিবনগর উপজেলা চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি জিয়াউদ্দীন বিশ্বাসের বাড়ির সামনে যায়। সেখানে জিয়াউদ্দীন বিশ্বাসের এক কর্মীকে চড়-থাপ্পড় দেয় নৌকা প্রতীকের সমর্থকরা। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ লেগে যায়। এতে উভয় পক্ষের ১৮ জন আহত হয়। রাতেই তাদেরকে বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় নৌকা প্রতীকের সমর্থক আনন্দবাস গ্রামের আলতাফ হোসেন বাদি হয়ে মুজিবনগর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলায় জিয়াউদ্দীন বিশ্বাসকে প্রধান আসামি করে স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মান্নান পক্ষের ২৫ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও ৩০/৪০ জনকে আসামি করা হয়।

 

মামলা দায়েরের পর তিনজনকে গ্রেপ্তার করে মঙ্গলবার আদালতে সোপর্দ করে মুজিবনগর থানা পুলিশ।

 

আসামি পক্ষের আইনজীবী ও জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি মিয়াজান আলী বলেন, সংঘর্ষের ঘটনায় আমাদের পক্ষের বেশ কয়েকজন গুরুতর আহত হয়েছেন। মুজিবনগর থানায় মামলা দায়েরের জন্য অভিযোগ দেওয়া হলেও পুলিশ তা রেকর্ড করছে না।

এই সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো সংবাদ
এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি। সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২৪ গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের তথ্য মন্ত্রনালয়ের বিধি মোতাবেক নিবন্ধনের জন্য আবেদিত।